بسم الله الرحمن الرحيم
اللَّهُمَّ صَلِّ عَلَى مُحَمَّدٍ وَعَلَى آلِ مُحَمَّدٍ
আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ Sunni Whatsapp Group Click : আমাদের সুন্নি বাংলা WhatsApp গ্রুপে যুক্ত হোন,আমাদের মুফতি হুজুরগণ আপনার ইসলামিক সমস্ত প্রশ্নের উত্তর দিবেন ইন শা আল্লাহ,জয়েন করতে ক্লিক করেন Sunni Bangla Whatsapp group আর Sunni Bangla facebook group এবং Sunni Bangla facebook group মাসলাক এ আলা হজরত জিন্দাবাদ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত জিন্দা বাদ ৭৩ফিরকা ১টি হক পথে ।নবিﷺ এর প্রেমই ঈমান।ফরজ সুন্নাত তাসাউফ সূফীবাদ নফল ইবাদতের আরকান আহকাম সমুহ মাস'আলা মাসায়েল ইত্যাদি জানতে পারবেন।নবিﷺ সাহাবাرضي الله عنه ওলি গণের জীবনি ও অমুল্য বাণী জানতে পারবেন।মুসলিম জগতের সকল খবর ও ম্যাগাজিন পাবেন এখানেহাদিস শরীফ, কুর'আন শরীফ , ইজমা কিয়াস সম্বলিত বিশ্লেষণ, বাতিলদের মুখোশ উম্মচন করে প্রমাণ সহ দলীল ভিত্তিক আলোচনা ।জানতে পারবেন হক পথে কারা আর বাতিল পথে কারা জা'আল হক। বাংলাদেশ ও ভারতের সুন্নি আলিমদের বাংলায় নাত গজল ওয়াজ নসিহত অডিও ভিডিও ডাউনলোড করুন এখান থেকে অনলাইনে সুন্নি টিভি Live দেখতে আর রেডিও Live শুনতে পাবেন। প্রচুর সুন্নি বাংলা কিতাব ডাউনলোড করুন এখান থেকে।সুন্নি ইসলামিক কম্পিঊটার এপ্লিকেশন এন্ড্রইড এপ্স পাবেন এখানে। প্রতিদিন ভিজিট করুন প্রতিদিন নতুন বিষয় আপডেট পেতে ।ভিজিট করার জন্য ধন্যবাদ জাজাকাল্লাহু খায়ের ।
শবে বরাতে নির্ধারিত আমল কি?

শবে বরাতে নির্ধারিত আমল কি?

edited February 2016 in Mas'la Masayel
সেসব হাদীস শরীফ
থেকে শবে বরাতের যেসব আমল পাই
সেগুলো হলোঃ-
১। ইস্তিগফার তথা আল্লাহর কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করা।
২। কবর যিয়ারত করা।
৩। নফল ইবাদত করা, যেমন নামাজ পড়া, কুরআন
তেলাওয়াত করা, জিকির আজকার করা।
৪। পরদিন রোযা রাখা।
৫। এ রাত উপলক্ষ্যে ফকীর মিসকিনকে দান-খয়রাত
করা অতি উত্তম। কেননা দান-খয়রাতের কথা পবিত্র
কুরআনে বারবার উল্লেখ করা হয়েছে। আর এ
রাত যেহেতু মহিমান্বিত, এ রাতের দান-খয়রাত বিনা
দলীলে পূণ্যময় কাজ।
শবে বরাতে বর্জনীয় কাজ
---------------
১। আতশবাজি।
২। ইসলামের মূলনীতির সাথে সাংঘর্ষিক সব কিছু
বর্জনীয়। যেমন গান-বাজনা, নাচ ইত্যাদি।
মা জননী হযরত আয়েশা (রা:) হতে বর্ণিত, তিনি
বলেন: আমি হুজুর ﷺ কে বলতে
শুনেছি, এমন চারটি রাত রয়েছে, যাতে আল্লাহ
তাআলা সকল মানুষের উপর নেকীর দরজা খুলে
দেন। এগুলো হচ্ছে- ঈদুল ফিতর, ঈদুল আদ্বহা,
শাবানের মধ্যবর্তী রাত ও আরাফাতের রাত্
এগুলোতে আল্লাহ তাআলা মানুষের বয়স, রিযিক ও
হজ্জ্বের ব্যাপারে নির্দেশনাদি লিপিবদ্ধ করে
দেন।
(গুনিয়াতুত তালেবীন, পৃষ্ঠা: ৩৬২)।
হযরত আয়েশা ( রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহা ) থেকে
বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি এক রাতে মহানবী
( সাল্লাল্লাহু আলাইহি ঔয়া সাল্লাম )-কে বিছানায় পেলাম
না। তাই আমি অত্যন্ত পেরেশান হয়ে খোঁজাখুঁজি
আরম্ভ করলাম। খুঁজতে খুঁজতে দেখি, তিনি জান্নাতুল
বাকীর মধ্যে মহান আল্লাহর প্রার্থনায় মগ্ন। তখন
তিনি আমাকে লক্ষ্য করে বললেন, হে আয়েশা!
আমার নিকট হযরত জিবরাইল ( আলাইহি ওয়া সাল্লাম )
উপস্থিত হয়েছিলেন। তিনি বলেছেন, আজ রাত হল
নিসফে শাবান ( অর্থাৎ, লাইলাতুল বারাআত )। এ রাতে
আল্লাহ তাআলা অধিক পরিমাণে জাহান্নামবাসী
লোকদেরকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেন।
এমনকি কালব বংশের বকরীগুলোর লোম
সমপরিমাণ ( কালব বংশের বকরীগুলোর শরীরে,
অন্য বকরীর তুলনাই লোম বেশী ) গুনাহগার বান্দা
হলেও। - ( তিরমীযি শরীফ , হাদীস নং- ৭৩৯ )
বিখ্যাত আলেমগণের মতে শাব এ বারাত
# ইমাম শাফেয়ী বলেন-
ﻭ ﺑﻠﻐﻨﺎ ﺃﻧﻪ ﻛﺎﻥ ﻳﻘﺎﻝ ﺇﻥ ﺍﻟﺮﻋﺎﺀ ﻳﺴﺘﺠﺎﺏ ﻓﻲ ﺧﻤﺲ ﻓﻲ
ﻟﻴﺎﻝ ﻓﻲ ﻟﻴﻠﺔ ﺟﻤﻌﺔ ﻭ ﻟﻴﻠﺔ ﺍﻷﺿﺤﻰ ﻭ ﻟﻴﻠﺔ ﺍﻟﻔﻄﺮ ﻭ ﺍﻭﻝ
ﻟﻴﻠﺔ ﻣﻦ ﺭﺟﺐ ﻭ ﻟﻴﻠﺔ ﺍﻟﻨﺼﻒ ﻣﻦ ﺷﻌﺒﺎﻥ
আর আমাদের নিকট এরূপ বর্ণনা এসেছে যে,
নিশ্চই পাঁচটি রাতে বান্দার দুআ'র জবাব দেয়া হয় অর্থাৎ
দু'আ কবুল করা হয়, জুমার রাত, ঈদুল ফিতর, ঈদুল
আযহার রাত, রজবের প্রথম রাত এবং শাবানের মধ্য
রাত (শবে বরাত)।
[আল উম্ম, ১:২৩১/২:৪৮৫, ইবনে রজব লাতায়িফুল
মা'আরিফ ১:১৩৭]
# খলিফা উমর ইবনে আব্দুল আযীয রাহঃ বসরায় তার
গভর্নরকে লিখেন-
ﻋﻠﻴﻚ ﺑﺄﺭﺑﻊ ﻟﻴﺎﻝ ﻣﻦ ﺍﻟﺴﻨﺔ ﻓﺈﻥ ﺍﻟﻠﻪ ﻳﻔﺮﻍ ﻓﻴﻬﻦ ﺍﻟﺮﺣﻤﺔ
ﺇﻓﺮﺍﻏﺎ ﺃﻭﻝ ﻟﻴﻠﺔ ﻣﻦ ﺭﺟﺐ ﻭﻟﻴﻠﺔ ﺍﻟﻨﺼﻒ ﻣﻦ ﺷﻌﺒﺎﻥ
ﻭﻟﻴﻠﺔ ﺍﻟﻔﻄﺮ ﻭﻟﻴﻠﺔ ﺍﻷﺿﺤﻰ
বছরে চার রাতের ব্যাপারে তোমার সতর্ক থাকা
প্রয়োজন, কেননা আল্লাহ্ তা'আলা ঐ
রাতগুলোতে তার রহমতের দরজা উন্মুক্ত করে
দেন। তা হল, রজবের প্রথম রাত, শাবানের মধ্য রাত
এবং ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহার রাত।
[ইবনে রজব লাতায়িফুল মা'আরিফ ১:১৩৭]
# ইবনে তাইয়িমাহ তার স্বীয় ফতোয়া গ্রন্থে
লিখেছেন-
ﺇﺫَﺍ ﺻَﻠَّﻰ ﺍﻟْﺈِﻧْﺴَﺎﻥُ ﻟَﻴْﻠَﺔَ ﺍﻟﻨِّﺼْﻒِ ﻭَﺣْﺪَﻩُ ﺃَﻭْ ﻓِﻲ ﺟَﻤَﺎﻋَﺔٍ
ﺧَﺎﺻَّﺔٍ ﻛَﻤَﺎ ﻛَﺎﻥَ ﻳَﻔْﻌَﻞُ ﻃَﻮَﺍﺋِﻒُ ﻣِﻦْ ﺍﻟﺴَّﻠَﻒِ ﻓَﻬُﻮَ ﺃَﺣْﺴَﻦُ
যদি কোন ব্যক্তি একাকী অথবা নির্দিষ্ট জামাতের
সাথে শা'বানের মধ্য রাতে ইবাদত করে যেমনটা
সালফে সালেহীনগণ করতেন অবশ্যই তা অধিক
উত্তম হবে।
[মাজমাউ'ল ফতওয়া ফতোয়ায়ে তাইয়িমাহ, ২৩তম খণ্ড,
১৩১ পৃষ্ঠা]
ﻭَﺃَﻣَّﺎ ﻟَﻴْﻠَﺔُ ﺍﻟﻨِّﺼْﻒِ ﻓَﻘَﺪْ ﺭُﻭِﻱَ ﻓِﻲ ﻓَﻀْﻠِﻬَﺎ ﺃَﺣَﺎﺩِﻳﺚُ ﻭَﺁﺛَﺎﺭٌ
ﻭَﻧُﻘِﻞَ ﻋَﻦْ ﻃَﺎﺋِﻔَﺔٍ ﻣِﻦْ ﺍﻟﺴَّﻠَﻒِ ﺃَﻧَّﻬُﻢْ ﻛَﺎﻧُﻮﺍ ﻳُﺼَﻠُّﻮﻥَ ﻓِﻴﻬَﺎ
ﻓَﺼَﻠَﺎﺓُ ﺍﻟﺮَّﺟُﻞِ ﻓِﻴﻬَﺎ ﻭَﺣْﺪَﻩُ ﻗَﺪْ ﺗَﻘَﺪَّﻣَﻪُ ﻓِﻴﻪِ ﺳَﻠَﻒٌ ﻭَﻟَﻪُ ﻓِﻴﻪِ
ﺣُﺠَّﺔٌ ﻓَﻠَﺎ ﻳُﻨْﻜَﺮُ ﻣِﺜْﻞُ ﻫَﺬَﺍ
শাবানের মধ্য রাতের ফজিলত সম্পর্কে বহু হাদীস
এসেছে, আছার তথা সাহাবায়ে কেরামের বর্ণনা,
তাবে তাবেঈগন সালফে সালহীগনের বক্তব্য
রয়েছে আর তারা এই রাতে ইবাদত করতেন।
সালফে সালেহীনদের মধ্যে এ রাতে ইবাদতের
ব্যাপারে আন্তরিকতা ও একাগ্রতা পাওয়া যায় এবং এ
ব্যাপারে (শবে বরাত) কোন নিষেধাজ্ঞা পাওয়া যায়
নি।
[মাজমাউ'ল ফতওয়া ফতোয়ায়ে তাইয়িমাহ, ২৩তম খণ্ড,
১৩২ পৃষ্ঠা]
# এমনিভাবে ফিক্বহে হানাফীর প্রসিদ্ধ কিতাব
আদ্দুররুল মুখতারে শবে বরাতের সম্পর্কে বলা
হয়েছে।
[১ম খণ্ড,২৪-২৫ পৃষ্ঠা]
জাজাকাল্লাহু খাইরান! আল্লাহ আমাদের সবাইকে এ
রাতে অগনিত আমল করার তৌফিক দান করুণ!
আমীন!


মানুন
না
মানুন
আপনার
ব্যাপার ,
তবে
মোরতে তো
এক দিন
হবেই!
তখন টের পাবেন।

imageimageimage

\m/ Share & :-bd Like
শবে বরাতে নির্ধারিত আমল কি? http://yanabi.in/u/t

Comments

Sign In or Register to comment.
|Donate|Shifakhana|Urdu/Hindi|All Sunni Site|Technology|